মূল রচনা থেকে অংশ:

ভবিষ্যতে করবেন ৷ অবশ্যই করবেন । স্ব মিলিয়ে ব্যাংকে তার আছে তিন লক্ষপঁচাত্তর হাজার টাকা । আমেরিকার জন্য এক লাখ টাকা ধরা আছে। তার পরেওহাতে থাকবে দুই লাখ পচাত্তর ৷রাহেলা এসে তার সামনে বসেছে। শামসুদ্দিন তার মুখের দিকে তাকিয়েএকটু হকচকিয়ে গেলেন। রাহেলার মুখ থমথম করছে। রফিকের সঙ্গে বড়ধরনের কোনো ঝগড়াঝাটি নিশ্যয়ই হয়েছে! কিছুদিন পরপর ওরা ঝগড়াকরছে। খুব ভুল কাজ হচ্ছে। রাহেলার সন্তান হবে । ছয় মাস চলছে । এই সময়মায়ের মেজাজ খারাপ থাকলে মায়ের পেটের সন্তানের ক্ষতি হয় ।শামসুদ্দিন বললেন, রাহেলা মন খারাপ নাকি £রাহেলা চাপা গলায় বলল, না ।মুখ এত গল্তীর করে রেখেছিস কেন £ শরীর খারাপ লাগছে £ শরীর খারাপলাগলে রেস্ট নে। শুয়ে থাক । আমার সামনে বসতে হবে না। একা খেয়ে আমারঅভ্যাস আছে।ভাইজান, তুমি নাকি আমেরিকা যাচ্ছ ?শামসুদ্দিন ক্ষীণ গলায় বললেন, হু।কবে খাচ্ছ ?যাওয়ার তারিখ এখনো ঠিক হয় নি। ভিসা হয়ে গেছে । এখন ইচ্ছা করলেযে-কোনো দিন যেতে পারি । বিমানের টিকিট কাটতে হবে।টিকিট কাটতে কত লাগবে ?ঠিক জানি না। সত্ুর আশি হাজীর টাকা লাগবে।আমেরিকায় থাকবে কোথায় ?সস্তার হোটেল মোটেল খুঁজে বের করব । আমার কিছু ছাত্র আছে। ওদেরঠিকানা নিয়ে যাব।আমেরিকায় যাচ্ছ কেন ?এই এমনি আর কী । বেড়াতে যাচ্ছি। এই জীবনে কিছুই তো দেখলাম না।নিজের দেশের দক্ষিণের পুরোটাই সমুদ্র ৷ সেই সমুদ্রও দেখা হলো না।শুধু বেড়ানোর জন্যে আমেরিকা যাচ্ছ ?শামসুদ্দিন চুপ করে রইলেন । শুধু বেড়ানোর জন্যে আমেরিকা যাচ্ছেন এটাবললে মিথ্যা বলা হবে । সামান্য বিষয় নিয়ে মিথ্যা বলা ঠিক হবে না।১০