মূল রচনা থেকে অংশ:

সুমির জন্মদিন নিয়ে আশরাফুদ্দিন ভালো দুশ্চিন্তায় আছেন। তিনি উড়া উড়।শুনছেন, জন্মদিন পালন করা হবে সুমির বড়মামার উত্তরার বাড়িতে । (ডুপলেক্সবাড়ি । বারান্দা থেকে লেক দেখা যায়। সুমি এ বাড়িতে যেতে খুবই পছন্দ করে ।)যেতে হবে, তবে জন্মদিনের উপহার কাক নিয়ে ঘেতে পারবেন না। কাক দেখলেঅনেক আজেবাজে কথা সুমির মামা বলে বসতে পারেন । একটা উপহার কিনেদিতে না পারা দুঃখের ব্যাপার |কাটাবনের পাখির দোকানের মালিক বলল, কাক কিনতে চান !জি।কাক ? কাউয়া ?জি কাউয়া ।কাউয়া দিয়ে করবেন কী £জন্মদিনে উপহার দিব।উপহার কাউয়া দিবেন কেন ? লাভ বার্ড নিয়ে যান। জোড়া তিনশ' টাকা ।খাচা ফি।আমার কাউয়াই দরকার ।আমরা কাউয়া বেচি না।বেচেন না কেন?কাউয়া পাখির মধ্যে পড়ে না ।পাখির মধ্যে পড়বে না কেন? কাক তো উড়তে পারে । কা কা করে গানও গায়!আপনি অন্য দোকানে যান। কাক কিনে কাকের গান শুনুন ।আশরাফুদ্দিন কোথাও কাক পেলেন না । শুধু এক দোকানি বলল, তার! কাকএনে দেবে, তবে এক হাজার টাকা খরচ লাগবে । পাচশ' টাকা আডভান্স |কাকের দাম এক হাজার টাকা ?দোকানি গম্ভীর গলায় বলল, জি, এক হাজার । কাক ধরা কঠিন ব্যাপারকাক ধরতে গিয়ে ঠোকর খেয়ে মানুষ মারা গেছে, এটা জানেন ?আশরাফুদ্দিন বললেন, পাচশ' টাকা পর্যন্ত দিতে পারব। এর বেশি পারবনা৷ ভাই, আমি গরিব মানুষ |দোকানি বলল, আগামীকাল আসেন । দেখি কাক জোগাড় করতে পারি কিশা | তবে কথা দিতে পারব না । পাচশ' টাকা দিয়ে যান। কাক না পাওয়া গেলেফেরত নিবেন।৯৯